দরকার নেই পেট্রোল ডিজেল ব্যাটারি, বাজারে দেখা মিললো অত্যাধুনিক ষাঁড় ট্যাক্সির

মানুষ যত আধুনিক হচ্ছে তত বেড়ে উঠছে ফ্ল্যাট বাড়ি, আর ছেঁটে ফেলা হচ্ছে উদ্ভিদকে। ফলত পরিবেশ দূষণের মাত্রা দিনকে দিন বেড়েই চলেছে। এই পরিবেশ দূষণের একটি কারণ যেমন প্রয়োজনের অতিরিক্ত গাছ কাটা, তেমনি অ’পর একটি কারণ হলো যানবাহন।

যানবাহন চলার ক্ষেত্রে আবশ্যিক জ্বা’লানি তেলের ব্যবহার পরিবেশের দূষণ কয়েকগু’ণ বাড়িয়ে দেয়। পরিবেশ দূষণ কমাতে তাই পরিবেশ বান্ধব ব্যাটারি চালিত যানবাহন ও ইলেকট্রিক গাড়ির চাহিদা তু’ঙ্গে।

আর যুগের চাহিদাকে মাথায় রেখে Tesla কম পয়সার পুষ্টিকর ইলেকট্রিক গাড়ি তৈরি করেছে। তবে মাহিন্দ্রা গ্রুপের চেয়ারম্যান আনন্দ মাহিন্দ্রা সম্প্রতি অন্য ছবি দেখালেন।

যা দেখে নেট নাগরিকদের মধ্যে যেমন তৈরি হয়েছে হাসির খোরাক, ঠিক তেমনই তারিফও করতে দেখা গিয়েছে তাদের। সোশ্যাল মিডিয়ায় সম্প্রতি মাহিন্দ্রা গ্রুপের চেয়ারম্যান আনন্দ মাহিন্দ্রা একটি ভিডিও পোস্ট করেন।

আর সেই ভিডিওর ক্যাপশনে লেখেন, “আমা’র মনে হয় না এই গাড়ির যা কম খরচ, সেই খরচায় কোন গাড়ি বের করতে পারবে Tesala বা Elon musk।” ভিডিওটি মুহূর্তের মধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছে।

আসলে ভিডিওটি একটি গরুর গাড়ির। তবে এই গরুর গাড়ি সেই গরুর গাড়ি নয়। এই গরুর গাড়ি একেবারে অত্যাধুনিক বলাই যেতে পারে। পঞ্চাশ সেকেন্ডের এই ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে দুটো ষাড়, পিছনে হাফ ট্যাক্সির মত একটি খোল টানছে।

যদিও ইলেকট্রিক গাড়ি আর গরুর গাড়ির মধ্যে আকাশ-পাতাল তফাৎ। আর এই ভিডিওটি নিছকই র’ঙ্গ রসিকতা করে আনন্দ মাহিন্দ্রা সোশ্যাল মিডিয়ায় টুইট করেছেন। তবুও এই ভিডিওটি মুহূর্তের মধ্যেই নেটিজেনদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে।

অনেকেই এই ভিডিওটিতে মজার মজার কমেন্ট করেছেন। অনেকে লিখেছেন, “এই গাড়ি থেকে আবার শক্তি ও জ্বা’লানি ও উৎপন্ন ’হতে পারে যা আমা’দের অতি পরিচিত প্রাচীন বায়োগ্যাস।”

উল্লেখ্য বায়ু দূষণ কমাতে Tesla-ই নয় অন্যান্য সংস্থাও ইলেকট্রিক গাড়ি আনার চেষ্টা করছে। তবে Tesla যে ধরনের গাড়ি বানিয়েছে তা অন্যান্য যে কোন জ্বা’লানি গাড়ির চাইতেই উন্নত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *