ভুলেও এই খাবার গুলো গরম করে খাবেন না

আমরা সাধারণত সময় বাঁচানোর জন্য একদিনের রান্না করা খাবার পরের দিনের জন্য রেখে দিই। সেই খাবার পুনরায় গরম করেই খাই।কিন্তু সেই খাবার পুনরায় গরম করা খাবার শরীরের উপকারের পরিবর্তে ক্ষতিই ডেকে আনে। এতে আমাদের স্বাস্থ্য ঝুঁকি অনেক গুণ বেড়ে যায়।এর মধ্যে ৮টি খাবার পুনরায় গরম করে খাওয়া বিপদজ্জনক। আসুন জেনে নেই সেই ৮টি খাবার সম্পর্কে। মাশরুম : সাধারণত মাশরুমের ফাইবার ও এনজাইম হজমে সহায়তা করে। এটি অন্ত্রে উপকারী ব্যাকটেরিয়ার কাজ বৃদ্ধিতে সাহায্য করে এবং কোলন-এর

আসুন জেনে নেই চিনা বাদাম এর অজানা উপকার

সববয়সের মানুষের জন্য চিনা বাদাম স্বাস্থ্যসম্মত খাবার। শখ করে কখনো কখনো হয়তো খাওয়া হয় তবে এর উপকারিতা সম্পর্কে জানলে প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় এই বাদাম রাখতে চাইবেন। এটি শরীরের অনেক উপকার করতে সক্ষম। এটি পুষ্টি গুণসম্পন্ন হওয়ার সাথে সাথে খেতেও বেশ দারুণ। আসুন জেনে নেই চিনা বাদামে কি কি স্বাস্থ্য উপকারিতা আছে। শরীরের মাত্রাধিক কোলেস্টেরল হৃদরোগ, উচ্চ রক্ত চাপ, ওজন বৃদ্ধি ও ডায়াবেটিস এর মতো কঠিন রোগ সৃষ্টি করে। বাদামের অসাধারণ কার্যকরী ফ্যাট শরীর থেকে কোলেস্টেরল কমাতে

আসুন জেনে নেই রোজা রেখে কি খাবেন,কি খাবেন না

রমজান মাসে সবাই খাবারের প্রতিযোগিতা নেমে পড়ে। কে কত খেতে বা রান্না করতে পারে। কিন্তু এসব ভাজা-পোড়া, গুরুপাক খাবার খেয়ে কী হতে পারে, তা কি জানি? সারা দিন রোজা রেখে পাকস্থলী খুব ক্ষুধার্ত ও দুর্বল থাকে। তারপর যদি এত রকম গুরুপাক খাবার একসঙ্গে খাওয়া হয়, তাহলে কী অবস্থা হবে? পেটের সমস্যা, মাথাব্যথা, দুর্বলতা, অবসাদ, আলসার, অ্যাসিডিটি, হজমের সমস্যা ইত্যাদি হবে রোজার নিত্যসঙ্গী। অনেকের ওজনও বেড়ে যায়। এ বিষয়ে পুষ্টিবিদ আখতারুন নাহার বলেন, রোজায় দামি খাবার

আপনি জানেন কি কোন খাবার গুলো আমাদের হার্ট সুস্থ রাখে

প্রতিদিন সকালে উঠে আমরা হাত-মুখ, দাঁত, চোখ সহ শরীরের অন্যান্য অঙ্গপ্রত্যঙ্গ পরিষ্কার করি, যত্ন করি। কিন্তু আমাদের শরীরের ভেতরের অঙ্গগুলোর কি কোন যত্ন নেই? হাত-মুখ, দাঁত এর মত হার্ট, কিডনি, ফুসফুসের যত্ন তো নেয়া যাবে না। তাহলে কি করা যায়?কি করে নেবেন হার্টের যত্ন? কিভাবে হার্টকে শক্তিশালী করবেন? কি খেলে আপনার হার্ট সব সময় ভালো থাকবে? আসুন সব গুলো প্রশ্নের উত্তর জেনে আসি। সুর্যমুখী তেল বা সুর্যমুখী বীজ সূর্যমুখী তেল ভিটামিন ই সমৃদ্ধ, যা শরীরের এন্টি-অক্সিডেন্ট হিসাবে কাজ করে। এটি সরাসরি

আপনি জানেন কি কোন খাবার গুলো আমাদের ত্বক সুন্দর রাখে

ত্বক ভালো রাখতে নানান রকমের প্রসাধনী পাওয়া যায় বাজারে। এর মধ্যে কোনোটা রঙ ফর্সা করার জন্য আবার কোনোটা ত্বক সজীব রাখার জন্য। কিন্তু প্রসাধনীর চেয়েও ত্বকের জন্য বেশি জরুরী হলো ভেতর থেকে পুষ্টি লাভ। ত্বক যদি ভেতর থেকে পুষ্টি না পায় তাহলে অনেক রকম প্রসাধনী ব্যবহার করার পরেও ত্বককে নির্জীব দেখাবে। আসুন জেনে নেয়া যাক এমন কিছু খাবারের কথা যেগুলো ত্বককে ভেতর থেকে পুষ্টির যোগান দেয়। ১) ফল-মূল নিয়মিত ফলমূল খেলে ত্বক ভালো থাকে। বিশেষ

আপনি জানেন কি কোন কোন খাবার আপনার দেহে রক্ত বাড়তে সাহায্য করে?

মানবদেহের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উপাদানগুলোর মধ্যে রক্ত অন্যতম। যা দেহের সকল অংশে অক্সিজেন এবং সব ধরনের পুষ্টি উপাদান বয়ে নিয়ে যায়। দেহে রক্তের কোনো উপাদান কম থাকলে সুস্থভাবে বাঁচা সম্ভব নয়। রক্তে আছে লাল রক্তকণিকা, সাদা রক্তকণিকা, এবং প্লেটলেট। লাল রক্ত কোষে আছে বিশেষ কিছু আয়রন কম্পাউন্ড, মেডিকেল টার্মে যাকে বলা হয় হিমোগ্লোবিন। হিমোগ্লোবিনের প্রধান কাজ হলো হৃদপিণ্ড থেকে দেহের সব অঙ্গে অক্সিজেন সরবরাহ করা। হিমোগ্লোবিন দেহকোষ থেকে কার্বন-ডাই-অক্সাইডও সংগ্রহ করে এবং তা পুনরায় ফুসফুসের কাছে

কিভাবে বুঝবেন আপনার রক্ত শূন্যতা আছে?

আপাত দৃষ্টিতে রক্ত স্বল্পতাকে খুব বড় কোনও রোগ বলে মনে না হলেও, যে কোন বড় রোগের শুরু হতে পারে এই রক্ত স্বল্পতা থেকেই। তাই শুরু থেকেই রক্ত স্বল্পতাকে গুরুত্ব দিয়ে দেখা উচিৎ।একজন পূর্ণবয়স্ক নারীদের জন্য রক্তে হিমোগ্লোবিন ১২.১ থেকে ১৫.১ গ্রাম/ডেসিলিটার, পুরুষের রক্তে ১৩.৮ থেকে ১৭.২ গ্রাম/ডেসিলিটার, শিশুদের রক্তে ১১ থেকে ১৬ গ্রাম/ডেসিলিটার থাকা স্বাভাবিক।কারও রক্তে হিমোগ্লোবিন এর চেয়ে কমে গেলে তিনি রক্ত স্বল্পতায় আক্রান্ত বলেই মনে করা হয়। এ বার রক্ত স্বল্পতার লক্ষণগুলি সম্পর্কে